DUCSU LPR


ডাকসুর উদ্যোগে "গাম্বিয়া বনাম মায়ানমারঃ রোহিঙ্গা গণহত্যা ও আন্তর্জাতিক আদালতের রায়" শীর্ষক শিক্ষার্থী সংলাপ অনুষ্ঠিত


Jan 28, 2020

Shares: 66



আজ ২৮ জানুয়ারি ২০২০ মঙ্গলবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) পরিচালিত জার্নাল ডাকসু ল এন্ড পলিটিক্স রিভিউ আয়োজিত শিক্ষার্থী সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্প্রতি আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালত কর্তৃক ঘোষিত গাম্বিয়া বনাম মায়ানমার মামলার রায় এবং রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচারের এর প্রভাব নিয়ে এই সংলাপ আয়োজিত হয়।

সংলাপে আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন কাওসার আহমেদ, এডভোকেট, সুপ্রিম কোর্ট। তিনি এই মামলার ঘটনা, দুপক্ষের আইনী বক্তব্য এবং মামলার রায় কি ছিলো তা নিয়ে কথা বলেন। এছাড়াও আলোচক হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের প্রভাষক মোহাম্মদ গোলাম সারোয়ার। তিনি বলেন মায়ানমার আন্তর্জাতিক আদালতের রায় মানতে বাধ্য এবং কোনোভাবেই এই মামলার রায়ের বিরুদ্ধে যেয়ে কোনো কাজ করতে পারবে না।

এই আয়োজনের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগের সাবেক বিচারপতি এ.এইচ.এম. শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক। তিনি বলেন, “আন্তর্জাতিক আদালতের এই রায় মুজিব বর্ষের সময়ে উৎসব করার মতন একটি রায়। এই রায় বাংলাদেশের সরকারের জন্য বিরাট কূটনৈতিক বিজয়”।

শিক্ষার্থী সংলাপের সভাপতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের মাননীয় ডীন অধ্যাপক ড. মোঃ রহমত উল্লাহ বলেন, “বাংলাদেশ জেনোসাইড কনভেনশনের ৯ ধারায় রিজার্ভেশন দিয়ে রাখায় নিজেই মায়ানমারের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারেনি। এখনো বাংলাদেশের সুযোগ আছে এই রিজার্ভেশন উঠিয়ে নেওয়া সহ রিফিউজি কনভেনশনের সদস্য হবার”। তিনি আরো বলেন, "বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে মানবতার উদাহরণ সৃষ্টি করেছে কিন্তু এর জন্য বাংলাদেশকে অনেক মূল্য দিতে হচ্ছে”।

ধন্যবাদ জ্ঞাপন করতে গিয়ে ডাকসুর এজিএস সাদ্দাম হোসাইন বলেন, “নোবেলজয়ী সূচি যখন গণহত্যার বিপরীতে জেনারেলদের গণতন্ত্রের সাফাই গাচ্ছেন, বঙ্গবন্ধু তনয়া দেশরত্ন শেখ হাসিনা তখন রোহিঙ্গা শিশুদের আশ্রয় দিয়েছেন”।

ডাকসুর আন্তর্জাতিক সম্পাদকের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত এই আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন ডাকসুর জিএস গোলাম রাব্বানী, এজিএস সাদ্দাম হোসাইন এবং ডাকসুর অন্যান্য সম্পাদক ও সদস্যবৃন্দ।



Tags :